বরিশাল ১১:৪৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বাবা মুক্তিযোদ্ধা না তবু ও কোটায় চাকরি তিন ছেলের যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান’র মৃত্যুবার্ষিকীতে গৌরনদীতে দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত ভোলায় হাসপাতালে লাশ রেখে পালালেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন, স্বজনদের দাবি হত্যা নলছিটিতে চাচাকে হত্যা চেষ্টা মামলায় ভাতিজা গ্রেপ্তার বিয়ের দাবিতে ছাত্রদল নেতার বাড়িতে তরুণীর অনশন মাদারীপুরে দুগ্ধপোষ্য ২ সন্তানকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে মানসিক ভারসাম্যহীন মা গৌরনদীতে পূর্ব শত্রুতার একজনকে খুপিয়ে জখম আমতলীতে গুপ্তধন দেয়ার নামে টাকা হাতিয়ে নিলো কবিরাজ ভোলায় ১১৫ পিস ইয়াবাসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী আটক বরিশাল শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুই চিকিৎসকের মধ্যে হাতাহাতি

পাকিস্তান নিজেই নিজের ক্ষতি করছে: আর্থার

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:১৯:৪৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জানুয়ারী ২০২৪ ৫০ বার পড়া হয়েছে

স্পোর্টস ডেস্ক — মিকি আর্থারের অধীনে ২০১৭ সালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জিতে পাকিস্তান। ২০১৯ সালের বিশ্বকাপে আশানুরূপ পারফরম্যান্স করতে না পারায় আর্থারকে বিদায় করে দেয় পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)।  গত বছর ভারত বিশ্বকাপের আগে মিকি আর্থারকে পরিচালক হিসেবে ফেরায় পাকিস্তান। বিশ্বকাপে আশানুরুপ পারফরম্যান্স না হওয়ায় পুরো কোচিং স্টাফ বদলায় পিসিবি।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে মিকি আর্থার বলেছেন, ‘আমি প্রতিনিয়ত দেখছি, পাকিস্তান ক্রিকেট নিজেদের পায়ে পেড়েক মারছে। প্রতিভা আছে, প্রয়োজন সঠিক কাঠামো, ভালো নেতৃত্ব। যথাযথ উপদেশের সঙ্গে চাই ধারাবাহিকতা ও স্থায়িত্ব। ২০১৬ থেকে ২০১৯, নাজামকে (নাজাম শেঠি-পিসিবির বর্তমান চেয়ারম্যান) ধন্যবাদ, তখন আমাদের কাছে এমন খেলোয়াড় ছিল, যারা প্রক্রিয়ায় বিশ্বাস করত।

আর্থার আরও বলেন, ‘আমি যখন ইনজির (ইনজামাম-উল-হক, সাবেক নির্বাচক) সঙ্গে বসতাম, যার সঙ্গে আমার দারুণ কাজের বোঝাপড়া, দল নির্বাচন করতাম, দলের সঙ্গে পরে যে আলোচনা হতো, তারা জানত একটা স্থায়ী কাঠামো আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি ও ইনজি তাদের ধারাবাহিকতা এনে দিচ্ছিলাম। আমি একজন খেলোয়াড়কে বলতে পারি (ফখরকে উদাহরণ হিসেবে ধরা যাক) যে তুমি আগামী ১০টি ওয়ানডে খেলবে। আমরা জানি ও আমাদের ম্যাচ জেতাবে। মাঝেমধ্যে এটা অনেক ঝুঁকির। কিন্তু অন্তত খেলোয়াড়দের কাঠামোর প্রতি বিশ্বাস ছিল, নির্বাচনপ্রক্রিয়াকে বিশ্বাস করত এবং দলের জন্য খেলত।’

আর্থার আরও বলেন, ‘যদি এখানে ক্রমাগত পরিবর্তন এবং অস্থিরতা থাকে, খেলোয়াড়েরা নিজের সুরক্ষার কৌশলে চলে যায় এবং তারা নিজেদের জন্য খেলতে শুরু করে পরবর্তী সফরের কথা চিন্তা করে। এটা দেখা হতাশাজনক যে খেলোয়াড়দের পর্যাপ্ত সুযোগ দেওয়া হয় না, কোনো সঠিক উপায়ে যোগাযোগ নেই এবং তারা জানে যে বিষয়গুলো সব সময় পরিবর্তন হতে চলেছে।’

আর্থার বলেন, ‘স্থানীয়ভাবে পাকিস্তানে অনেক প্রতিভা আছে। আমরা একটি উচ্চমানের কার্যকরী কাঠামো তৈরি করেছিলাম এবং আমরা সেটা বাস্তবায়নও করতে যাচ্ছিলাম। কিন্তু চেয়ারম্যান পদের পরিবর্তনের সঙ্গে এটি হারিয়ে গেছে। খুবই হতাশাজনক। আমি এখনো মনে করি, পাকিস্তান ক্রিকেট নিজেদের পায়েই গুলি করছে, তবে এটা আরও ভালো হতে পারত।’

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

পাকিস্তান নিজেই নিজের ক্ষতি করছে: আর্থার

আপডেট সময় : ০৫:১৯:৪৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জানুয়ারী ২০২৪

স্পোর্টস ডেস্ক — মিকি আর্থারের অধীনে ২০১৭ সালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জিতে পাকিস্তান। ২০১৯ সালের বিশ্বকাপে আশানুরূপ পারফরম্যান্স করতে না পারায় আর্থারকে বিদায় করে দেয় পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)।  গত বছর ভারত বিশ্বকাপের আগে মিকি আর্থারকে পরিচালক হিসেবে ফেরায় পাকিস্তান। বিশ্বকাপে আশানুরুপ পারফরম্যান্স না হওয়ায় পুরো কোচিং স্টাফ বদলায় পিসিবি।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে মিকি আর্থার বলেছেন, ‘আমি প্রতিনিয়ত দেখছি, পাকিস্তান ক্রিকেট নিজেদের পায়ে পেড়েক মারছে। প্রতিভা আছে, প্রয়োজন সঠিক কাঠামো, ভালো নেতৃত্ব। যথাযথ উপদেশের সঙ্গে চাই ধারাবাহিকতা ও স্থায়িত্ব। ২০১৬ থেকে ২০১৯, নাজামকে (নাজাম শেঠি-পিসিবির বর্তমান চেয়ারম্যান) ধন্যবাদ, তখন আমাদের কাছে এমন খেলোয়াড় ছিল, যারা প্রক্রিয়ায় বিশ্বাস করত।

আর্থার আরও বলেন, ‘আমি যখন ইনজির (ইনজামাম-উল-হক, সাবেক নির্বাচক) সঙ্গে বসতাম, যার সঙ্গে আমার দারুণ কাজের বোঝাপড়া, দল নির্বাচন করতাম, দলের সঙ্গে পরে যে আলোচনা হতো, তারা জানত একটা স্থায়ী কাঠামো আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি ও ইনজি তাদের ধারাবাহিকতা এনে দিচ্ছিলাম। আমি একজন খেলোয়াড়কে বলতে পারি (ফখরকে উদাহরণ হিসেবে ধরা যাক) যে তুমি আগামী ১০টি ওয়ানডে খেলবে। আমরা জানি ও আমাদের ম্যাচ জেতাবে। মাঝেমধ্যে এটা অনেক ঝুঁকির। কিন্তু অন্তত খেলোয়াড়দের কাঠামোর প্রতি বিশ্বাস ছিল, নির্বাচনপ্রক্রিয়াকে বিশ্বাস করত এবং দলের জন্য খেলত।’

আর্থার আরও বলেন, ‘যদি এখানে ক্রমাগত পরিবর্তন এবং অস্থিরতা থাকে, খেলোয়াড়েরা নিজের সুরক্ষার কৌশলে চলে যায় এবং তারা নিজেদের জন্য খেলতে শুরু করে পরবর্তী সফরের কথা চিন্তা করে। এটা দেখা হতাশাজনক যে খেলোয়াড়দের পর্যাপ্ত সুযোগ দেওয়া হয় না, কোনো সঠিক উপায়ে যোগাযোগ নেই এবং তারা জানে যে বিষয়গুলো সব সময় পরিবর্তন হতে চলেছে।’

আর্থার বলেন, ‘স্থানীয়ভাবে পাকিস্তানে অনেক প্রতিভা আছে। আমরা একটি উচ্চমানের কার্যকরী কাঠামো তৈরি করেছিলাম এবং আমরা সেটা বাস্তবায়নও করতে যাচ্ছিলাম। কিন্তু চেয়ারম্যান পদের পরিবর্তনের সঙ্গে এটি হারিয়ে গেছে। খুবই হতাশাজনক। আমি এখনো মনে করি, পাকিস্তান ক্রিকেট নিজেদের পায়েই গুলি করছে, তবে এটা আরও ভালো হতে পারত।’