বরিশাল ০৩:৫৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

সেতু থেকে নদীতে পড়লো বেপরোয়া গতির বাস, নিহত ১২

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:২৩:২০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জানুয়ারী ২০২৪ ৭৪ বার পড়া হয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ‍॥  নেপালে একটি যাত্রীবাহী বাস সেতুর ওপর থেকে নদীতে পড়ে অন্তত ১২ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও ২৩ জন। নিহতদের মধ্যে দুজন ভারতীয় নাগরিক রয়েছেন। শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) রাতে দেশটির ডাং জেলার রাপ্তি নদীতে বাসটি পড়ে গেলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানিয়েছে, বাসটি নেপালগঞ্জ থেকে কাঠমান্ডুর দিকে যাচ্ছিল। শুক্রবার স্থানীয় সময় রাত ১০টার দিকে সেটি ভালুবাংয়ের রাপ্তি সেতু থেকে ছিটকে নদীতে পড়ে যায়। এ দুর্ঘটনায় শনিবার দুপুর ১টা পর্যন্ত ১২ জনের মৃত্যুর বিষয়ে নিশ্চিত করা হয়েছে। এদের মধ্যে সাতজনই ঘটনাস্থলে প্রাণ হারান। বাকি পাঁচজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

নিহতদের মধ্যে দুজন ভারতীয় নাগরিক। তারা হলেন- উত্তর প্রদেশের বাসিন্দা মুনে (৩১) এবং বিহারের বাসিন্দা যোগেন্দ্র রাম (৬৭)।

জেলা পুলিশ অফিসের মুখপাত্র পুলিশ উপ-সপি জনক বাহাদুর মাল্লা জানিয়েছেন, নিহতদের মধ্যে তিনজনের পরিচয় সম্পর্কে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। পুলিশের উপ-পরিদর্শক সুন্দর তিওয়ারি জানিয়েছেন, আহতদের কোহালপুরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যেও দুজন ভারতীয় নাগরিকসহ রয়েছেন।

বাসের অতিরিক্ত গতির কারণেই এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বাসচালক লাল বাহাদুর নেপালিকে (২৮) হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

সেতু থেকে নদীতে পড়লো বেপরোয়া গতির বাস, নিহত ১২

আপডেট সময় : ০৪:২৩:২০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জানুয়ারী ২০২৪

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ‍॥  নেপালে একটি যাত্রীবাহী বাস সেতুর ওপর থেকে নদীতে পড়ে অন্তত ১২ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও ২৩ জন। নিহতদের মধ্যে দুজন ভারতীয় নাগরিক রয়েছেন। শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) রাতে দেশটির ডাং জেলার রাপ্তি নদীতে বাসটি পড়ে গেলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানিয়েছে, বাসটি নেপালগঞ্জ থেকে কাঠমান্ডুর দিকে যাচ্ছিল। শুক্রবার স্থানীয় সময় রাত ১০টার দিকে সেটি ভালুবাংয়ের রাপ্তি সেতু থেকে ছিটকে নদীতে পড়ে যায়। এ দুর্ঘটনায় শনিবার দুপুর ১টা পর্যন্ত ১২ জনের মৃত্যুর বিষয়ে নিশ্চিত করা হয়েছে। এদের মধ্যে সাতজনই ঘটনাস্থলে প্রাণ হারান। বাকি পাঁচজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

নিহতদের মধ্যে দুজন ভারতীয় নাগরিক। তারা হলেন- উত্তর প্রদেশের বাসিন্দা মুনে (৩১) এবং বিহারের বাসিন্দা যোগেন্দ্র রাম (৬৭)।

জেলা পুলিশ অফিসের মুখপাত্র পুলিশ উপ-সপি জনক বাহাদুর মাল্লা জানিয়েছেন, নিহতদের মধ্যে তিনজনের পরিচয় সম্পর্কে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। পুলিশের উপ-পরিদর্শক সুন্দর তিওয়ারি জানিয়েছেন, আহতদের কোহালপুরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যেও দুজন ভারতীয় নাগরিকসহ রয়েছেন।

বাসের অতিরিক্ত গতির কারণেই এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বাসচালক লাল বাহাদুর নেপালিকে (২৮) হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।