বরিশাল ০৪:৩২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

কন্যা সন্তানের মা হলেন গৌরনদীর মানসিক ভারসাম্যহীন সেই নারী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:৪০:৪২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২৪ ২৯৭ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশালের গৌরনদীর মানসিক ভারসাম্যহীন সেই নারী মা হয়েছেন। বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) সকালে উপজেলা হাসপাতালে ওই নারী একটি কন্যাসন্তানের জন্ম দিয়েছেন। উপজেলা হাসপাতালের জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক টিপু সুলতান জানান, বুধবার দুপুরে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা সন্তানসম্ভবা মানসিক ভারসাম্যহীন ৩৫ বছরের ওই নারীকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। ভর্তির পর থেকে তিনি পর্যবেক্ষণে ছিলেন। বৃহস্পতিবার সকাল সাতটার দিকে নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে তার একটি কন্যাসন্তান ভূমিষ্ঠ হয়। বর্তমানে মা-মেয়ে দুজনই সুস্থ আছেন।

উপজেলা নির্বাহী মো. আবু আব্দুল্লাহ খান বলেন, বিষয়টি নজরে আসার পর ওই নারীর নিরাপদ সন্তান প্রসব ও সুচিকিৎসা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। তিনি আরও বলেন, শিশুটির ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করার জন্য বৃহস্পতিবার বিকেলে সমাজসেবা অধিদপ্তরের আওতাধীন আগৈলঝাড়া উপজেলার গৈলা বেবিহোমে শিশুটিকে হস্তান্তর করা হয়েছে। উল্লেখ্য, মানসিক ভারসাম্যহীন নারী উপজেলার বিভিন্ন বাজারে ঘুরে বেড়াতেন। স্থানীয়ভাবে তাকে সবাই ‘পাগলি’ বলে ডাকে। প্রসঙ্গত, বুধবার (১৭ জানুয়ারি) দুপুরে উপজেলার বাটাজোর ইউনিয়নের শৌলকর গ্রামের রাস্তায় প্রসব বেদনায় কাতর মানসিক ভারসাম্যহীন নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছিলেন ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা।

ফায়ার সার্ভিস স্টেশন অফিসার মো. বিপুল হোসেন বলেন, বুধবার দুপুরে উপজেলার বাটাজোর-শৌলকর রাস্তায় মানসিক ভারসাম্যহীন ওই নারীর প্রসব বেদনা শুরু হয়। এসময় তার চিৎকার শুনে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

কন্যা সন্তানের মা হলেন গৌরনদীর মানসিক ভারসাম্যহীন সেই নারী

আপডেট সময় : ০৫:৪০:৪২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশালের গৌরনদীর মানসিক ভারসাম্যহীন সেই নারী মা হয়েছেন। বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) সকালে উপজেলা হাসপাতালে ওই নারী একটি কন্যাসন্তানের জন্ম দিয়েছেন। উপজেলা হাসপাতালের জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক টিপু সুলতান জানান, বুধবার দুপুরে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা সন্তানসম্ভবা মানসিক ভারসাম্যহীন ৩৫ বছরের ওই নারীকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। ভর্তির পর থেকে তিনি পর্যবেক্ষণে ছিলেন। বৃহস্পতিবার সকাল সাতটার দিকে নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে তার একটি কন্যাসন্তান ভূমিষ্ঠ হয়। বর্তমানে মা-মেয়ে দুজনই সুস্থ আছেন।

উপজেলা নির্বাহী মো. আবু আব্দুল্লাহ খান বলেন, বিষয়টি নজরে আসার পর ওই নারীর নিরাপদ সন্তান প্রসব ও সুচিকিৎসা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। তিনি আরও বলেন, শিশুটির ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করার জন্য বৃহস্পতিবার বিকেলে সমাজসেবা অধিদপ্তরের আওতাধীন আগৈলঝাড়া উপজেলার গৈলা বেবিহোমে শিশুটিকে হস্তান্তর করা হয়েছে। উল্লেখ্য, মানসিক ভারসাম্যহীন নারী উপজেলার বিভিন্ন বাজারে ঘুরে বেড়াতেন। স্থানীয়ভাবে তাকে সবাই ‘পাগলি’ বলে ডাকে। প্রসঙ্গত, বুধবার (১৭ জানুয়ারি) দুপুরে উপজেলার বাটাজোর ইউনিয়নের শৌলকর গ্রামের রাস্তায় প্রসব বেদনায় কাতর মানসিক ভারসাম্যহীন নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছিলেন ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা।

ফায়ার সার্ভিস স্টেশন অফিসার মো. বিপুল হোসেন বলেন, বুধবার দুপুরে উপজেলার বাটাজোর-শৌলকর রাস্তায় মানসিক ভারসাম্যহীন ওই নারীর প্রসব বেদনা শুরু হয়। এসময় তার চিৎকার শুনে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।