বরিশাল ০৩:১৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

খপ্পরে পড়ে গ্রামাঞ্চলের রোগীরা সর্বস্বান্ত

ভুয়া ডাক্তার দিয়ে চলছে বরিশালে অবৈধ হাসপাতাল-ক্লিনিক

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:২৪:৩১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২৪ ৮১ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক— বরিশালজুড়ে ভুয়া ডাক্তার, টেকনোলজিস্ট, মানহীন মেশিনসংবলিত ল্যাব, পরীক্ষা—নিরীক্ষা ছাড়াই প্যাথলজির ভুয়া রিপোর্ট প্রদানসহ দালাল নির্ভর ব্যক্তি মালিকানাধীন ক্লিনিক—হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ছড়াছড়ি। এসব প্রতিষ্ঠানের খপ্পরে পড়ে গ্রামাঞ্চল ও শহরতলি থেকে আসা রোগীরা সর্বস্বান্ত হচ্ছেন। বরিশালের ১০ উপজেলায় ১৩৩ ও সিটি করপোরেশন এলাকায় ১২৯ বৈধ কিনিক—হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে। কিন্তু এর বাইরে শত শত অবৈধ ডায়াগনস্টিক ক্লিনিক বাণিজ্য করে যাচ্ছে। এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মাঝে মাঝে অভিযান চললেও স্বাস্থ্য বিভাগ ও সিভিল সার্জনের কিছু অসাধু কর্মকর্তা—কর্মচারীকে ম্যানেজ করে ব্যবসা চলছে। সরেজমিন দেখা গেছে, নগরীর সদর রোড, গির্জা মহল্লা মোড়, আগরপুর রোড, কাকলির মোড়, বাটারগলি, বিবির পুকুর পাড়, অশ্বিনী কুমার হল চত্বর, শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও বরিশাল জেনারেল হাস পাতালের সামনে দালাল চক্রের দৌরাত্ম্য। নির্দিষ্ট পার্সেন্টেজের বিনিময়ে রোগী ভাগিয়ে নেওয়ার তুমুল প্রতিযোগিতা চলে তাদের মধ্যে। দালালরা ওতপেতে থাকে নগরীর রুপাতলী, নথুল্লাবাদ বাস টার্মিনাল ও লঞ্চ টার্মিনালে বিভিন্ন জেলা—উপজেলা থেকে আসা রোগীদের জন্য। দালালরা তাদের পছন্দের ডাক্তার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে রোগীদের নিয়ে গিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিে”ছ। জানা গেছে, নগরীতে সব থেকে বেশি ডায়াগনস্টিক সেন্টার গড়ে উঠেছে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে। এখানে ৩০টি ডায়াগনস্টিক সেন্টার এবং কিনিক রয়েছে। প্রতিটিতেই জড়িত আছেন হাসপাতালের কোনো না কোনো চিকিৎসক ও কর্মকর্তা—কর্মচারী। এছাড়া কিছু চিকিৎসক প্রতি রোগীর পরীা—নিরীার ওপর পাে”ছন সর্বনিম্ন ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ কমিশন। এসব চিকিৎসকের কাছ থেকে রোগী নিজেদের ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে আসতে রয়েছেন মার্কেটিং কর্মী নামধারী দালাল। ঠিক একই অব¯’া বরিশাল সদর হাসপাতালের সামনেও। এ হাসপাতালের সীমানা থেকে প্রায় ৫০ গজের মধ্যেই রয়েছে একাধিক ডায়াগনস্টিক সেন্টার এবং কিনিক। এসব প্রতিষ্ঠানের নেপথ্যেও রয়েছেন ওই হাসপাতালের চিকিৎসক এবং কর্মচারী। অভিযোগ রয়েছে, শুধু ডাক্তার এবং কর্মকর্তা—কর্মচারীই নন, একের পর এক গড়ে ওঠা ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও কিনিকের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন প্রভাবশালীরা। তাদের নেত”ত্বেই এসব প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত রোগীদের জিম্মি করে গলাকাটা হে”ছ। এক ভুক্তভোগী রোগীর স্বজন ঝালকাঠির সদর উপজেলার বিনয়কাঠির বাসিন্দা হাকিম হাওলাদার জানান, মাকে নিয়ে নগরীর বাটার গলিতে এলে দালালের খপ্পরে পড়েন। প্রথমে দালালরা ভুল বুঝিয়ে একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে ভুয়া ডাক্তার দেখানো শেষে প্রেসক্রিপশনের প্যাডে ৮টি পরীা করতে বলে ৬ হাজার ৩০০ টাকা ও ডাক্তার ফি আরও ৮০০ টাকা নিয়েছে। কিš’ তার মায়ের রোগ ভালো হয়নি। বরিশাল সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) সম্পাদক রফিকুল ইসলাম বলেন, নগরীতে কত কিনিক, হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে তার সংখ্যা জানার জন্য আমরা সিভিল সার্জনের কাছে আবেদন করেছিলাম। তবে সিভিল সার্জন থেকে আমাদের বলা হয় স্বা¯’্য বিভাগে যেতে। সেখানে আবেদন করার পর তারা বলছে, হালনাগদ নেই। তারা মাঠে নেমে এর একটি তালিকা প্রস্তুত করবে। কিš’ আজও আমরা তালিকা পাইনি। স্বা¯’্য অধিদপ্তরের নির্দেশনার পর সারা দেশে অভিযান হলেও বরিশালে কোনো অভিযান পরিচালিত হয়নি। আমরা মনে করছি কোনো সমঝোতার কারণে এমনটা হয়েছে। বরিশাল স্বা¯’্য বিভাগের পরিচালক ডা. শ্যামল ক”ষ্ণ মন্ডল জানান, অবৈধ হাসপাতাল, কিনিক, ল্যাব ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে প্রায়ই আমরা অভিযান পরিচালনা করি। বর্তমানেও অভিযান চলমান রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

খপ্পরে পড়ে গ্রামাঞ্চলের রোগীরা সর্বস্বান্ত

ভুয়া ডাক্তার দিয়ে চলছে বরিশালে অবৈধ হাসপাতাল-ক্লিনিক

আপডেট সময় : ১১:২৪:৩১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক— বরিশালজুড়ে ভুয়া ডাক্তার, টেকনোলজিস্ট, মানহীন মেশিনসংবলিত ল্যাব, পরীক্ষা—নিরীক্ষা ছাড়াই প্যাথলজির ভুয়া রিপোর্ট প্রদানসহ দালাল নির্ভর ব্যক্তি মালিকানাধীন ক্লিনিক—হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ছড়াছড়ি। এসব প্রতিষ্ঠানের খপ্পরে পড়ে গ্রামাঞ্চল ও শহরতলি থেকে আসা রোগীরা সর্বস্বান্ত হচ্ছেন। বরিশালের ১০ উপজেলায় ১৩৩ ও সিটি করপোরেশন এলাকায় ১২৯ বৈধ কিনিক—হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে। কিন্তু এর বাইরে শত শত অবৈধ ডায়াগনস্টিক ক্লিনিক বাণিজ্য করে যাচ্ছে। এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মাঝে মাঝে অভিযান চললেও স্বাস্থ্য বিভাগ ও সিভিল সার্জনের কিছু অসাধু কর্মকর্তা—কর্মচারীকে ম্যানেজ করে ব্যবসা চলছে। সরেজমিন দেখা গেছে, নগরীর সদর রোড, গির্জা মহল্লা মোড়, আগরপুর রোড, কাকলির মোড়, বাটারগলি, বিবির পুকুর পাড়, অশ্বিনী কুমার হল চত্বর, শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও বরিশাল জেনারেল হাস পাতালের সামনে দালাল চক্রের দৌরাত্ম্য। নির্দিষ্ট পার্সেন্টেজের বিনিময়ে রোগী ভাগিয়ে নেওয়ার তুমুল প্রতিযোগিতা চলে তাদের মধ্যে। দালালরা ওতপেতে থাকে নগরীর রুপাতলী, নথুল্লাবাদ বাস টার্মিনাল ও লঞ্চ টার্মিনালে বিভিন্ন জেলা—উপজেলা থেকে আসা রোগীদের জন্য। দালালরা তাদের পছন্দের ডাক্তার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে রোগীদের নিয়ে গিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিে”ছ। জানা গেছে, নগরীতে সব থেকে বেশি ডায়াগনস্টিক সেন্টার গড়ে উঠেছে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে। এখানে ৩০টি ডায়াগনস্টিক সেন্টার এবং কিনিক রয়েছে। প্রতিটিতেই জড়িত আছেন হাসপাতালের কোনো না কোনো চিকিৎসক ও কর্মকর্তা—কর্মচারী। এছাড়া কিছু চিকিৎসক প্রতি রোগীর পরীা—নিরীার ওপর পাে”ছন সর্বনিম্ন ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ কমিশন। এসব চিকিৎসকের কাছ থেকে রোগী নিজেদের ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে আসতে রয়েছেন মার্কেটিং কর্মী নামধারী দালাল। ঠিক একই অব¯’া বরিশাল সদর হাসপাতালের সামনেও। এ হাসপাতালের সীমানা থেকে প্রায় ৫০ গজের মধ্যেই রয়েছে একাধিক ডায়াগনস্টিক সেন্টার এবং কিনিক। এসব প্রতিষ্ঠানের নেপথ্যেও রয়েছেন ওই হাসপাতালের চিকিৎসক এবং কর্মচারী। অভিযোগ রয়েছে, শুধু ডাক্তার এবং কর্মকর্তা—কর্মচারীই নন, একের পর এক গড়ে ওঠা ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও কিনিকের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন প্রভাবশালীরা। তাদের নেত”ত্বেই এসব প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত রোগীদের জিম্মি করে গলাকাটা হে”ছ। এক ভুক্তভোগী রোগীর স্বজন ঝালকাঠির সদর উপজেলার বিনয়কাঠির বাসিন্দা হাকিম হাওলাদার জানান, মাকে নিয়ে নগরীর বাটার গলিতে এলে দালালের খপ্পরে পড়েন। প্রথমে দালালরা ভুল বুঝিয়ে একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে ভুয়া ডাক্তার দেখানো শেষে প্রেসক্রিপশনের প্যাডে ৮টি পরীা করতে বলে ৬ হাজার ৩০০ টাকা ও ডাক্তার ফি আরও ৮০০ টাকা নিয়েছে। কিš’ তার মায়ের রোগ ভালো হয়নি। বরিশাল সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) সম্পাদক রফিকুল ইসলাম বলেন, নগরীতে কত কিনিক, হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে তার সংখ্যা জানার জন্য আমরা সিভিল সার্জনের কাছে আবেদন করেছিলাম। তবে সিভিল সার্জন থেকে আমাদের বলা হয় স্বা¯’্য বিভাগে যেতে। সেখানে আবেদন করার পর তারা বলছে, হালনাগদ নেই। তারা মাঠে নেমে এর একটি তালিকা প্রস্তুত করবে। কিš’ আজও আমরা তালিকা পাইনি। স্বা¯’্য অধিদপ্তরের নির্দেশনার পর সারা দেশে অভিযান হলেও বরিশালে কোনো অভিযান পরিচালিত হয়নি। আমরা মনে করছি কোনো সমঝোতার কারণে এমনটা হয়েছে। বরিশাল স্বা¯’্য বিভাগের পরিচালক ডা. শ্যামল ক”ষ্ণ মন্ডল জানান, অবৈধ হাসপাতাল, কিনিক, ল্যাব ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে প্রায়ই আমরা অভিযান পরিচালনা করি। বর্তমানেও অভিযান চলমান রয়েছে।