বরিশাল ০৪:১৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

রাজাপুরে মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ঘুষ বানিজ্যের অভিযোগ, নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৮:০৪:০২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ২৪৭ বার পড়া হয়েছে

মিঠুন চক্রবর্তী, রাজাপুর— ঘুষ বানিজ্যের অভিযোগে ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার পূর্ব পুটিয়াখালী দারুচ্ছালাম ফাজিল মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষসহ ৩টি পদের নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে এ অভিযোগের ভিত্তিতে স্থানীয় ও চাকুরী প্রত্যাশীদের তোপেরমুখে পড়ে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুহাম্মাদ মুস্তাকিম বিল্লাহ। পরে দুপুরে মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটি এ সিদান্ত নিয়ে নোটিশ বোর্ড নোটিশ টানিয়ে দেয়।

স্থানীয় চাকরি প্রত্যাশীরা অভিযোগ করে জানান, মাদ্রাসার অধ্যক্ষ যথাযথ ভাবে সকল প্রার্থীদের এডমিট সরবরাহ না করে মোটা অঙ্কের ঘুষ গ্রহনের মাধ্যমে তার পছন্দের কয়েকজনকে ফোনে জানিয়ে তাদের নিয়ে আজ সকালে পরীক্ষার আয়োজন করে। বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয়রা চাকুরী প্রত্যাশীদের মধ্যে কয়েকজনকে নিয়ে এর প্রতিবাদ করে সভাপতিসহ সংশ্লিষ্টদের বিষয়টি অবগত করেন।

মাদ্রাসা সূত্রে জানা গেছে, উপাধ্যক্ষ পদে ৫ জন, অফিস সহকারি কাম কমিপউটার অপারেটর পদে ২৬ জন ও আয়া পদে ৪ জনে আবেদন করে। পরে শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারী) সকাল ৯ টায় নিয়োগ পরীক্ষার আয়োজন করা হয়।

মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুহাম্মাদ মুস্তাকিম বিল্লাহ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ডাকে সকলের পরীক্ষার এডমিট পাঠানো হয়েছে। তারপরেও পিয়ন দিয়ে সকলকে ফোনে জানানো হয়েছে। স্থানীয় একটি চক্র কয়েকজন ব্যক্তির কাছ থেকে অনৈতিক সুবিধা নিয়ে পেছনের তারিখ দেখিয়ে আবেদন করতে চায় এবং তাদের অনৈতিক পছন্দের ব্যক্তিকে নিয়োগের আবদার না রাখায় আমার বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে।

স্থানীয় ফারুক মোল্লা জানান, অধ্যক্ষ ঘুষ গ্রহনের মাধ্যমে আবেদন কারীদের এডমিট না দিয়ে কয়েকজনকে নিয়ে পরীক্ষার আয়োজন করলে স্থানীয় ও চাকুরীতে আবেদনকারীরা সভাপতিসহ নিয়োগ বোর্ডের সংশ্লিষ্টদের অবহিত করে।

এ বিষয়ে মাদ্রসার সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক জানান, অনুকূল পরিবেশ না থাকায় মাদ্রাসার ৩টি পদের নিয়োগ স্থগিত করে পুনরায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোস্তফা আলম দৈনিক সংবাদ সকালকে জানান, ডিজির প্রতিনিধি নিয়ে সংশ্লিষ্ট মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ নিয়োগ প্রত্রিুয়া করে থাকেন। অধ্যক্ষ লাঞ্ছিত বা পরীক্ষা স্থগিতের বিষয়টি তাকে কেহই অবগত করেনি। তবে খোজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

রাজাপুরে মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ঘুষ বানিজ্যের অভিযোগ, নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত

আপডেট সময় : ০৮:০৪:০২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

মিঠুন চক্রবর্তী, রাজাপুর— ঘুষ বানিজ্যের অভিযোগে ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার পূর্ব পুটিয়াখালী দারুচ্ছালাম ফাজিল মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষসহ ৩টি পদের নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে এ অভিযোগের ভিত্তিতে স্থানীয় ও চাকুরী প্রত্যাশীদের তোপেরমুখে পড়ে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুহাম্মাদ মুস্তাকিম বিল্লাহ। পরে দুপুরে মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটি এ সিদান্ত নিয়ে নোটিশ বোর্ড নোটিশ টানিয়ে দেয়।

স্থানীয় চাকরি প্রত্যাশীরা অভিযোগ করে জানান, মাদ্রাসার অধ্যক্ষ যথাযথ ভাবে সকল প্রার্থীদের এডমিট সরবরাহ না করে মোটা অঙ্কের ঘুষ গ্রহনের মাধ্যমে তার পছন্দের কয়েকজনকে ফোনে জানিয়ে তাদের নিয়ে আজ সকালে পরীক্ষার আয়োজন করে। বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয়রা চাকুরী প্রত্যাশীদের মধ্যে কয়েকজনকে নিয়ে এর প্রতিবাদ করে সভাপতিসহ সংশ্লিষ্টদের বিষয়টি অবগত করেন।

মাদ্রাসা সূত্রে জানা গেছে, উপাধ্যক্ষ পদে ৫ জন, অফিস সহকারি কাম কমিপউটার অপারেটর পদে ২৬ জন ও আয়া পদে ৪ জনে আবেদন করে। পরে শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারী) সকাল ৯ টায় নিয়োগ পরীক্ষার আয়োজন করা হয়।

মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুহাম্মাদ মুস্তাকিম বিল্লাহ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ডাকে সকলের পরীক্ষার এডমিট পাঠানো হয়েছে। তারপরেও পিয়ন দিয়ে সকলকে ফোনে জানানো হয়েছে। স্থানীয় একটি চক্র কয়েকজন ব্যক্তির কাছ থেকে অনৈতিক সুবিধা নিয়ে পেছনের তারিখ দেখিয়ে আবেদন করতে চায় এবং তাদের অনৈতিক পছন্দের ব্যক্তিকে নিয়োগের আবদার না রাখায় আমার বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে।

স্থানীয় ফারুক মোল্লা জানান, অধ্যক্ষ ঘুষ গ্রহনের মাধ্যমে আবেদন কারীদের এডমিট না দিয়ে কয়েকজনকে নিয়ে পরীক্ষার আয়োজন করলে স্থানীয় ও চাকুরীতে আবেদনকারীরা সভাপতিসহ নিয়োগ বোর্ডের সংশ্লিষ্টদের অবহিত করে।

এ বিষয়ে মাদ্রসার সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক জানান, অনুকূল পরিবেশ না থাকায় মাদ্রাসার ৩টি পদের নিয়োগ স্থগিত করে পুনরায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোস্তফা আলম দৈনিক সংবাদ সকালকে জানান, ডিজির প্রতিনিধি নিয়ে সংশ্লিষ্ট মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ নিয়োগ প্রত্রিুয়া করে থাকেন। অধ্যক্ষ লাঞ্ছিত বা পরীক্ষা স্থগিতের বিষয়টি তাকে কেহই অবগত করেনি। তবে খোজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।