বরিশাল ১২:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
রাজাপুরে এসএসসি ২০১৬ ব্যাচের ইফতার ও পূর্নমিলনী অনুষ্ঠিত উজিরপুরে এসএসসি ২০১৬ ব্যাচের ইফতার ও পূর্নমিলনী অনুষ্ঠিত সুবিদখালী দারুসসুন্নাত ফাজিল মাদ্রাসার প্রাক্তন ছাত্র এসোসিয়েশনের ইফতার মাহফিল উজিরপুরে ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত ডাকাত সর্দার শহীদুল গ্রেফতার রিয়াজ উদ্দিন আহমেদকে পুনরায় উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায় মঠবাড়িয়াবাসী পটুয়াখালীতে সৌদি আরবের সাথে ঈদ উদযাপন  ভুরিয়া ইউপি নির্বাচনে আনারস প্রতীক পেলেন জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব সরোয়ার হোসেন খান পটুয়াখালীতে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা পরিস্থিতি পরিদর্শনে পুলিশ সুপার  পটুয়াখালী সদর উপজেলা বাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন যুবলীগ নেতা রেজাউল করিম সোয়েব মঠবাড়িয়ায় তুচ্ছ বিষয় নিয়ে মসজিদের ইমামের উপর হামলা

রাজাকারের পুত্রবধূকে সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়ন দেওয়ায় তোলপাড়

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:৪৪:৩৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৪৬ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক— দ্বাদশ জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত নারী আসনে আওয়ামী লীগের রাজাকার পরিবারের সদস্য সাতক্ষীরার লায়লা পারভীন সেঁজুতিকে মনোনয়ন দেয়ায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। বাবা মুক্তিযোদ্ধা থাকলেও তার শশুরের বিরুদ্ধে রাজাকার হিসেবে দালিলিক প্রমান রয়েছে। সেঁজুতির বেশ কিছু কর্মকান্ডও ছিল বিতর্কিত। তাকে মনোনয়ন দেয়ায় পুরো সাতক্ষীরা জুড়েই এক প্রকার বিরুপ আলোচনা শুরু হয়েছে।

এদিকে সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্য মনোনীতি হওয়ায় রাজাকার নেয়ামত উদ্দিনের মুক্তারের বাড়িতে সংবর্ধণা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। জেলার অধিকাংশ আওয়ামী লীগ নেতা ও সচেতন মহল ওই অনুষ্ঠানটি বর্জণ করেছেন। তারা বলছেন একজন রাজাকারের পুত্রবধুকে নারী সংসদ সদস্য মনোনয়ন দেওয়া দু:খজনক ও অপ্রত্যাশিত।
জানা যায়, সাতক্ষীরার লায়লা পারভীন সেঁজুতি ২০১৭ সালে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে প্রবেশ করেন। কিন্তু ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে বিতর্কিত ভূমিকার জন্য জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ তাকে বহিষ্কারের প্রস্তাব পাঠায় কেন্দ্রের কাছে। পরে তিনি জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত হন।
তার বাবা স ম আলাউদ্দিন ছিলেন সাতক্ষীরার বীর মুক্তিযোদ্ধা। যদিও তিনি জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের হয়ে গণবাহিনীর সদস্য ছিলেন। পরে আওয়ামী লীগে ফিরে আসেন এবং দলের সাংগঠনিক সম্পাদক হন। তিনি আততায়ীর হাতে নিহত হন। তবে তার শ্বশুর নেয়ামত উদ্দিন মুক্তার ছিলেন শান্তি কমিটির সদস্য। এজন্য ১৯৭২ সালের ৫ জানুয়ারি দালাল আইনে তিনি গ্রেপ্তার হন। এ এস এম সামছুল আরেফিন সম্পাদনার বই ‘রাজাকার ও দালাল অভিযোগে গ্রেফতারকৃতদের নামের তালিকা’ শশুর নিয়ামত উদ্দিন মুক্তারের গ্রেফতারের বিষয়টি স্পস্ট উল্লেখ রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সেঁজুতির শ্বশুর ছাড়াও তার ভাশুর আজম ছিলেন বিএনপির সহযোগী সংগঠন কৃষক দলের আহ্বায়ক। ননদ ফেরদৌসি আরা লুসি মহিলা দলের যুগ্ম আহ্বায়ক ও অন্য ননদের স্বামী সৈয়দ ইফতেখার আলী জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন ও বর্তমান কমিটির আহবায়কের দায়িত্ব পালন করছেন।
এদিকে তার মনোনয়ন নিয়ে পুরো জেলাতেই এক প্রকার তোলপাড় চলছে। আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে অসন্তোষও শুরু হয়েছে। তারা বলছেন, প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডে তাকে ঘিরে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপনের মাধ্যমে মনোনয়ন নিয়েছেন।
এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বলেন, তার শ্বশুরবাড়ির দিকের পরিবারের বেশিরভাগই বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।
তবে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ কামাল শুভ্র বলেন, যতটুকু শুনেছি তার শ্বশুর মুক্তিযুদ্ধের সময় শান্তি কমিটিতে ছিলেন।
এসব বিষয়ে জানতে চাইলে সেঁজুতি বলেন, আমি এ ব্যাপারে কিছু বলব না, যারা এসব তথ্য ছড়াচ্ছে, তারাই প্রমাণ করুক।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

রাজাকারের পুত্রবধূকে সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়ন দেওয়ায় তোলপাড়

আপডেট সময় : ০১:৪৪:৩৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক— দ্বাদশ জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত নারী আসনে আওয়ামী লীগের রাজাকার পরিবারের সদস্য সাতক্ষীরার লায়লা পারভীন সেঁজুতিকে মনোনয়ন দেয়ায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। বাবা মুক্তিযোদ্ধা থাকলেও তার শশুরের বিরুদ্ধে রাজাকার হিসেবে দালিলিক প্রমান রয়েছে। সেঁজুতির বেশ কিছু কর্মকান্ডও ছিল বিতর্কিত। তাকে মনোনয়ন দেয়ায় পুরো সাতক্ষীরা জুড়েই এক প্রকার বিরুপ আলোচনা শুরু হয়েছে।

এদিকে সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্য মনোনীতি হওয়ায় রাজাকার নেয়ামত উদ্দিনের মুক্তারের বাড়িতে সংবর্ধণা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। জেলার অধিকাংশ আওয়ামী লীগ নেতা ও সচেতন মহল ওই অনুষ্ঠানটি বর্জণ করেছেন। তারা বলছেন একজন রাজাকারের পুত্রবধুকে নারী সংসদ সদস্য মনোনয়ন দেওয়া দু:খজনক ও অপ্রত্যাশিত।
জানা যায়, সাতক্ষীরার লায়লা পারভীন সেঁজুতি ২০১৭ সালে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে প্রবেশ করেন। কিন্তু ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে বিতর্কিত ভূমিকার জন্য জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ তাকে বহিষ্কারের প্রস্তাব পাঠায় কেন্দ্রের কাছে। পরে তিনি জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত হন।
তার বাবা স ম আলাউদ্দিন ছিলেন সাতক্ষীরার বীর মুক্তিযোদ্ধা। যদিও তিনি জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের হয়ে গণবাহিনীর সদস্য ছিলেন। পরে আওয়ামী লীগে ফিরে আসেন এবং দলের সাংগঠনিক সম্পাদক হন। তিনি আততায়ীর হাতে নিহত হন। তবে তার শ্বশুর নেয়ামত উদ্দিন মুক্তার ছিলেন শান্তি কমিটির সদস্য। এজন্য ১৯৭২ সালের ৫ জানুয়ারি দালাল আইনে তিনি গ্রেপ্তার হন। এ এস এম সামছুল আরেফিন সম্পাদনার বই ‘রাজাকার ও দালাল অভিযোগে গ্রেফতারকৃতদের নামের তালিকা’ শশুর নিয়ামত উদ্দিন মুক্তারের গ্রেফতারের বিষয়টি স্পস্ট উল্লেখ রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সেঁজুতির শ্বশুর ছাড়াও তার ভাশুর আজম ছিলেন বিএনপির সহযোগী সংগঠন কৃষক দলের আহ্বায়ক। ননদ ফেরদৌসি আরা লুসি মহিলা দলের যুগ্ম আহ্বায়ক ও অন্য ননদের স্বামী সৈয়দ ইফতেখার আলী জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন ও বর্তমান কমিটির আহবায়কের দায়িত্ব পালন করছেন।
এদিকে তার মনোনয়ন নিয়ে পুরো জেলাতেই এক প্রকার তোলপাড় চলছে। আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে অসন্তোষও শুরু হয়েছে। তারা বলছেন, প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডে তাকে ঘিরে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপনের মাধ্যমে মনোনয়ন নিয়েছেন।
এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বলেন, তার শ্বশুরবাড়ির দিকের পরিবারের বেশিরভাগই বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।
তবে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ কামাল শুভ্র বলেন, যতটুকু শুনেছি তার শ্বশুর মুক্তিযুদ্ধের সময় শান্তি কমিটিতে ছিলেন।
এসব বিষয়ে জানতে চাইলে সেঁজুতি বলেন, আমি এ ব্যাপারে কিছু বলব না, যারা এসব তথ্য ছড়াচ্ছে, তারাই প্রমাণ করুক।