বরিশাল ০১:৩১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
গৌরনদীতে ইউপি চেয়ারম্যানের ওপর হামলা ও বাইকে অগ্নিসংযোগ, ২০ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেফতার ২ বরিশালে পুলিশ বক্সে হামলা অজ্ঞাত ৩০০ জনের নামে মামলা মাদারীপুরে কোটা সংস্কার আন্দোলকারীদের সঙ্গে পুলিশ-ছাত্রলীগের ত্রিমুখী সংঘর্ষে নিহত ১ আক্রমণ না করার শর্তে ববি ক্যাম্পাস ছেড়েছে পুলিশ-বিজিবি উজিরপুরে কোটা বিরোধী আন্দোলনে হামলার প্রতিবাদে সাধারণ শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল ভোলায় কোটা আন্দোলনের নামে ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সভা বাবা মুক্তিযোদ্ধা না তবু ও কোটায় চাকরি তিন ছেলের যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান’র মৃত্যুবার্ষিকীতে গৌরনদীতে দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত ভোলায় হাসপাতালে লাশ রেখে পালালেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন, স্বজনদের দাবি হত্যা নলছিটিতে চাচাকে হত্যা চেষ্টা মামলায় ভাতিজা গ্রেপ্তার

শহরের পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার অনুন্নয়নে মশার উপদ্রবে অতিষ্ঠ পটুয়াখালী পৌরবাসী

রিপন কুমার দাস
  • আপডেট সময় : ০৭:০৯:৫৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০০ বার পড়া হয়েছে
পটুয়াখালী প্রতিনিধি— রুটিন বা ছক করে নয় প্রয়োজনেই ব্যবহার করতে হবে জীবনমান অক্ষুন্ন রাখার অতীব গুরুত্বপূর্ণ জিনিস গুলো।সময়ের সাথে সাথে  জনসংখ্যা বারে, বারে না ভুমির আয়তন। তাই আমরা করি ভুমির সুসম বন্টন। দুর্ভাগ্যের বিষয় হলো পাচটি বছরে যতসামান্য জায়গা নিয়ে সৌন্দর্যের পিছনে ছুটে ভুলেই গেছি এই শহরের পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার।যার ফলশ্রুতি মশার উপদ্রব আর ময়লা আবর্জনায় নাকাল পৌরবাসী।
২৬ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের ৯ টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত পটুয়াখালী পৌরসভা। নিদিষ্ট কিছু এলাকায় সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ হলেও শহরে পুরাতন,জনবহুল গুরুত্বপূর্ন এবং বানিজ্যিক এলাকা গুলোর রাস্তাঘাট ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার তেমন কোন পরিবর্তন দেখা যায়নি। সঠিক পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার, সরু ড্রেন,দীর্ঘদিন ধরে মশার বংশবিস্তার রোধক ঔষধ প্রয়োগ না করা আর পৌর কর্তৃপক্ষের তদারকির অভাবে পরিছন্নতা হাড়িয়ে  মশা-মাছির অভয়ারণ্যে। দোকান কিংবা বাসা-বাড়িতে মশার জ্বালায় অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। এ পরিস্থিতি থেকে দ্রুত মুক্তি চান স্থানীয় বাসিন্দারা।
৩ নং ওয়ার্ডের চা’য়ের দোকানদার সিদ্দিকুর রহমান বলেন অনেক মশা, দোকানদারি করতে কষ্ট হয়, দিনেও কয়েল জ্বালাতে হয়। অনকে দিন আগে মশার ঔষধ দিয়ে গেছে এখন আবার দরকার।
এদিকে কাঠপট্টি এলাকার এক বাসিন্দা জানান মশার জ্বালায় অস্থির, বিকাল হলেই ঘরে বাইরে কোন খানে থাকতে পারিনা। এক বছরের মতো হইছে মশার ঔষধ দিয়া গ্যাছে আর কোন খবর নাই। যদি পারেন মশা কোমাইন্না ঔষধ দেন।
এভাবেই তাদের মনের মধ্যে পুষে রাখা কথা গুলো ব্যক্ত করেন।
সরেজমিনে দেখা গেছে সরু ভাংচুরা ড্রেনে পানি চলাচল ঠিকঠাক ভাবে না হওয়ার কারনে জমে থাকা ময়লা আবর্জনা পানিতে প্রচুর মশার উপস্থিতি।এদিকে  পুরান বাজার ও নিউমার্কেট এলাকায় দেখা দেখা গেছে শহরে রাস্তা ঘাট পরিস্কার পরিছন্নকর্মীরা দ্বায়সারা ভাবে ময়লা আবর্জনা অপসারণ করলে থেকে যাওয়া অবশিষ্ট ময়লা আবর্জনা পথচারীদের দুর্ভোগ লেগেই থাকে।উক্ত বিষয়ে পৌরসভার স্যানিটারী ইন্সপেক্টরের মুঠোফোনে ফোন দিলে তার মুঠোফোন টি বন্ধ পাওয়া যায়।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

শহরের পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার অনুন্নয়নে মশার উপদ্রবে অতিষ্ঠ পটুয়াখালী পৌরবাসী

আপডেট সময় : ০৭:০৯:৫৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
পটুয়াখালী প্রতিনিধি— রুটিন বা ছক করে নয় প্রয়োজনেই ব্যবহার করতে হবে জীবনমান অক্ষুন্ন রাখার অতীব গুরুত্বপূর্ণ জিনিস গুলো।সময়ের সাথে সাথে  জনসংখ্যা বারে, বারে না ভুমির আয়তন। তাই আমরা করি ভুমির সুসম বন্টন। দুর্ভাগ্যের বিষয় হলো পাচটি বছরে যতসামান্য জায়গা নিয়ে সৌন্দর্যের পিছনে ছুটে ভুলেই গেছি এই শহরের পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার।যার ফলশ্রুতি মশার উপদ্রব আর ময়লা আবর্জনায় নাকাল পৌরবাসী।
২৬ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের ৯ টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত পটুয়াখালী পৌরসভা। নিদিষ্ট কিছু এলাকায় সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ হলেও শহরে পুরাতন,জনবহুল গুরুত্বপূর্ন এবং বানিজ্যিক এলাকা গুলোর রাস্তাঘাট ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার তেমন কোন পরিবর্তন দেখা যায়নি। সঠিক পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার, সরু ড্রেন,দীর্ঘদিন ধরে মশার বংশবিস্তার রোধক ঔষধ প্রয়োগ না করা আর পৌর কর্তৃপক্ষের তদারকির অভাবে পরিছন্নতা হাড়িয়ে  মশা-মাছির অভয়ারণ্যে। দোকান কিংবা বাসা-বাড়িতে মশার জ্বালায় অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। এ পরিস্থিতি থেকে দ্রুত মুক্তি চান স্থানীয় বাসিন্দারা।
৩ নং ওয়ার্ডের চা’য়ের দোকানদার সিদ্দিকুর রহমান বলেন অনেক মশা, দোকানদারি করতে কষ্ট হয়, দিনেও কয়েল জ্বালাতে হয়। অনকে দিন আগে মশার ঔষধ দিয়ে গেছে এখন আবার দরকার।
এদিকে কাঠপট্টি এলাকার এক বাসিন্দা জানান মশার জ্বালায় অস্থির, বিকাল হলেই ঘরে বাইরে কোন খানে থাকতে পারিনা। এক বছরের মতো হইছে মশার ঔষধ দিয়া গ্যাছে আর কোন খবর নাই। যদি পারেন মশা কোমাইন্না ঔষধ দেন।
এভাবেই তাদের মনের মধ্যে পুষে রাখা কথা গুলো ব্যক্ত করেন।
সরেজমিনে দেখা গেছে সরু ভাংচুরা ড্রেনে পানি চলাচল ঠিকঠাক ভাবে না হওয়ার কারনে জমে থাকা ময়লা আবর্জনা পানিতে প্রচুর মশার উপস্থিতি।এদিকে  পুরান বাজার ও নিউমার্কেট এলাকায় দেখা দেখা গেছে শহরে রাস্তা ঘাট পরিস্কার পরিছন্নকর্মীরা দ্বায়সারা ভাবে ময়লা আবর্জনা অপসারণ করলে থেকে যাওয়া অবশিষ্ট ময়লা আবর্জনা পথচারীদের দুর্ভোগ লেগেই থাকে।উক্ত বিষয়ে পৌরসভার স্যানিটারী ইন্সপেক্টরের মুঠোফোনে ফোন দিলে তার মুঠোফোন টি বন্ধ পাওয়া যায়।