বরিশাল ০৫:১৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

উজিরপুরে স্কুল ছাত্রীকে ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ, ৬ মাসের অন্তঃসত্তা, ধর্ষক পলাতক

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:১৪:৫৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১০ মার্চ ২০২৪ ৩৪ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক— উজিরপুরে হত্যার হুমকি দিয়ে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে এক বখাটের বিরুদ্ধে। এরই মধ্যে ওই শিক্ষার্থী ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েছে। বিষয়টি স্থানীয়দের কাছে জানালে উল্টো হুমকি দেয়া হচ্ছে ওই শিক্ষার্থীর পরিবারকে। ঘটনার পর গা-ঢাকা দিয়েছে অভিযুক্ত শহিদুল মল্লিক (৩০)।

নির্যাতিতার পরিবার জানান ছয় মাস আগে উপজেলার বড়াকোঠা ইউনিয়নের গাজিরপাড় গ্রামের একই বাড়ির কাদের মল্লিকের বখাটে ছেলে শহিদুল মল্লিক ওই ছাত্রীকে ঘড় থেকে ডেকে নিয়ে যায়। পরে ওই শিক্ষার্থীকে হত্যার হুমকি দিয়ে তার নিজ বসত ঘরে ও শিক্ষার্থীর ঘরে একাধিকবার ধর্ষণ করে।

ভয় আর আতঙ্কে ওই ছাত্রী বিষয়টি পরিবার কাছ থেকে গোপন রাখে। সম্প্রতি শিক্ষার্থীর পেটে ব্যথা হওয়ায় পরিবারের লোকজনের কিছুটা সন্দেহ হয় এবং হাসপাতালের ডাক্তারের কাছে গেলে তারা পরিক্ষা-নীরিক্ষা করে ৬ মাসের অন্তঃসত্তা দেখতে পান। শিক্ষার্থীর কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে সে অকপটে বিষয়টি স্বীকার করে। পরে স্থানীয়দের জানালে দফায় দফায় নির্যাতিতার পরিবারকে হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ তাদের। হুমকির মুখে ভয়ে এলাকা ছেড়ে ওই ছাত্রী পাশের বানারীপাড়া-উপজেলায় ফুফু বাড়িতে আশ্রয় নেয়। এ ঘটনার ন্যায়বিচার পেতে প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন নির্যাতিতার পরিবার, স্বজন ও এলাকাবাসী।

নির্যাতিতার বাবা বলেন, ‘আমার মেয়ের সর্বনাশ করেছে। এলাকার নেতাদের কাছে বলছি, তারা কোনো সুরাহা করছেন না। তারা শুধু সময় নিচ্ছেন সমাধান করার জন্য। এছাড়া হুমকিও দিচ্ছে অনেকেই। আমার মেয়ের সর্বনাশ যে করছে, তার সাথে আমার মেয়ের বিয়ে দিতে হবে। তা না হলে আমি আইনের আশ্রয় নেব।’

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শহিদুল মল্লিকের বাবা কাদের মল্লিক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘আমার ছেলে অন্যায় করেছে। তার বিরুদ্ধে আইনগতভাবে যে বিচার হোক আপত্তি নেই।’ তবে শহিদুল মল্লিক পালিয়ে থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। শনিবার উজিরপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: জাফর আহম্মেদ বলেন, বিষয়টি জানা নেই , অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

উজিরপুরে স্কুল ছাত্রীকে ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ, ৬ মাসের অন্তঃসত্তা, ধর্ষক পলাতক

আপডেট সময় : ১২:১৪:৫৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১০ মার্চ ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক— উজিরপুরে হত্যার হুমকি দিয়ে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে এক বখাটের বিরুদ্ধে। এরই মধ্যে ওই শিক্ষার্থী ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েছে। বিষয়টি স্থানীয়দের কাছে জানালে উল্টো হুমকি দেয়া হচ্ছে ওই শিক্ষার্থীর পরিবারকে। ঘটনার পর গা-ঢাকা দিয়েছে অভিযুক্ত শহিদুল মল্লিক (৩০)।

নির্যাতিতার পরিবার জানান ছয় মাস আগে উপজেলার বড়াকোঠা ইউনিয়নের গাজিরপাড় গ্রামের একই বাড়ির কাদের মল্লিকের বখাটে ছেলে শহিদুল মল্লিক ওই ছাত্রীকে ঘড় থেকে ডেকে নিয়ে যায়। পরে ওই শিক্ষার্থীকে হত্যার হুমকি দিয়ে তার নিজ বসত ঘরে ও শিক্ষার্থীর ঘরে একাধিকবার ধর্ষণ করে।

ভয় আর আতঙ্কে ওই ছাত্রী বিষয়টি পরিবার কাছ থেকে গোপন রাখে। সম্প্রতি শিক্ষার্থীর পেটে ব্যথা হওয়ায় পরিবারের লোকজনের কিছুটা সন্দেহ হয় এবং হাসপাতালের ডাক্তারের কাছে গেলে তারা পরিক্ষা-নীরিক্ষা করে ৬ মাসের অন্তঃসত্তা দেখতে পান। শিক্ষার্থীর কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে সে অকপটে বিষয়টি স্বীকার করে। পরে স্থানীয়দের জানালে দফায় দফায় নির্যাতিতার পরিবারকে হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ তাদের। হুমকির মুখে ভয়ে এলাকা ছেড়ে ওই ছাত্রী পাশের বানারীপাড়া-উপজেলায় ফুফু বাড়িতে আশ্রয় নেয়। এ ঘটনার ন্যায়বিচার পেতে প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন নির্যাতিতার পরিবার, স্বজন ও এলাকাবাসী।

নির্যাতিতার বাবা বলেন, ‘আমার মেয়ের সর্বনাশ করেছে। এলাকার নেতাদের কাছে বলছি, তারা কোনো সুরাহা করছেন না। তারা শুধু সময় নিচ্ছেন সমাধান করার জন্য। এছাড়া হুমকিও দিচ্ছে অনেকেই। আমার মেয়ের সর্বনাশ যে করছে, তার সাথে আমার মেয়ের বিয়ে দিতে হবে। তা না হলে আমি আইনের আশ্রয় নেব।’

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শহিদুল মল্লিকের বাবা কাদের মল্লিক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘আমার ছেলে অন্যায় করেছে। তার বিরুদ্ধে আইনগতভাবে যে বিচার হোক আপত্তি নেই।’ তবে শহিদুল মল্লিক পালিয়ে থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। শনিবার উজিরপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: জাফর আহম্মেদ বলেন, বিষয়টি জানা নেই , অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।