বরিশাল ১২:১৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
রাজাপুরে এসএসসি ২০১৬ ব্যাচের ইফতার ও পূর্নমিলনী অনুষ্ঠিত উজিরপুরে এসএসসি ২০১৬ ব্যাচের ইফতার ও পূর্নমিলনী অনুষ্ঠিত সুবিদখালী দারুসসুন্নাত ফাজিল মাদ্রাসার প্রাক্তন ছাত্র এসোসিয়েশনের ইফতার মাহফিল উজিরপুরে ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত ডাকাত সর্দার শহীদুল গ্রেফতার রিয়াজ উদ্দিন আহমেদকে পুনরায় উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায় মঠবাড়িয়াবাসী পটুয়াখালীতে সৌদি আরবের সাথে ঈদ উদযাপন  ভুরিয়া ইউপি নির্বাচনে আনারস প্রতীক পেলেন জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব সরোয়ার হোসেন খান পটুয়াখালীতে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা পরিস্থিতি পরিদর্শনে পুলিশ সুপার  পটুয়াখালী সদর উপজেলা বাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন যুবলীগ নেতা রেজাউল করিম সোয়েব মঠবাড়িয়ায় তুচ্ছ বিষয় নিয়ে মসজিদের ইমামের উপর হামলা

মির্জাগঞ্জে ব্রিজ নির্মানে ধীরগতি, ভোগান্তিতে হাজারো মানুষ

আব্দুল ওয়াদুদ
  • আপডেট সময় : ০২:০০:৪২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০২৪ ৪৩ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার: পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে শ্রীমন্ত নদীর ওপর নির্মাণাধীন সেতুর কাজে ধীরগতিতে চলছে। উপজেলার মাধবখালী ইউনিয়নের কাঠালতলী – রামপুর সংযোগ ব্রিজের এই অবস্থা। ৩ বছরে নির্মাণ কাজ শেষ করার কথা থাকলেও হয়েছে ৪০ শতাংশ কাজ। ফলে দীর্ঘদিন ধরে এলাকার কয়েক হাজার মানুষের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। এছাড়া যানবাহন চলাচলেও বিঘ্ন ঘটছে। নেই বিকল্প পারাপারের ব্যবস্থাও। লোকজন বাধ্য হয়ে পাশের ঝুঁকিপূর্ন ব্রিজ দিয়ে চলাচল করছে। উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, ২০২০-২১ অর্থ বছরে জাইকার অর্থায়নে ৬ কোটি ৬৪ লাখ ৯০ হাজার ৭৬ টাকা ব্যয়ে ব্রিজ নির্মানের কাজটি যৌথভাবে পায় বরিশালের এম এম বিল্ডার্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিঃ ও মের্সাস আমির ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পোরেশন।কাজটি তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব পালন করে মির্জাগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী দপ্তর। কিন্তু নির্মান কাজ শুরুর প্রায় ৪ বছর পার হলেও শেষ হয়নি ব্রিজটির কাজ। স্থানীয় বাসিন্দা মোসাঃ আয়শা বেগম বলেন, নতুন ব্রিজের কাজ শুরু করে দীর্ঘ বছর ফেলে রেখেছে ঠিকাদার। বিকল্প যোগাযোগের কোন ব্যবস্থা করেনি। আমারা ঝুঁকি নিয়ে পুরাতন ঝুঁকিপূর্ন ব্রিজ দিয়ে পায়ে হেঁটে নদী পার হই।কিন্তু কোন গাড়ি পার হতে পারে না। ফলে কোন লোকজন মারা গেলেও ব্রিজের ওপর গাড়ি থামিয়ে স্ট্রেতে করে বাড়ি নিয়ে যেতে হয়। এটা আমাদের জন্য খুব কষ্টকর হয়ে পরে। পথচারী মোঃ সাইফুল বলেন, ব্রিজটি নিয়ে আমারা অনেক সমস্যা আছি। ৩ বছরের বেশি সময় ধরে পরে আছে। গাড়ি নিয়ে আমরা পারাপার হতে পারিনা।খুবই দূর্ভোগ পোহাচ্ছি। গাড়ি চালক মো. বাবুল বলেন, নতুন ব্রিজ নির্মান কাজ শুরু করে শেষ করার কোন খবর নেই। অন্যদিকে পুরাতন ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ন হওয়ায় আমারা গাড়ি পার করতে পারছিনা।যাত্রী নামিয়ে দিতে হয় ব্রিজের ঢালে। এতে আমাদের দিনে দিনে অনেক লোকসান হচ্ছে। মির্জাগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ আলমগীর বাদশাহ্ বলেন, ব্রিজটি নির্মানে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের কিছুটা গাফিলতি রয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে ব্রিজ নির্মান কাজটি শেষ করার জন্য ঠিকাদারকে জোর তাগিদ দেওয়া হবে। এবিষয়ে মের্সাস আমির ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পোরেশনের সত্ত্বাধিকারী মোঃ আমির হোসেন বলেন, কাজের শুরুতে ঝামেলা হয়েছিলে। তবে যথা সময়ে কাজ শেষ হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

মির্জাগঞ্জে ব্রিজ নির্মানে ধীরগতি, ভোগান্তিতে হাজারো মানুষ

আপডেট সময় : ০২:০০:৪২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০২৪

স্টাফ রিপোর্টার: পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে শ্রীমন্ত নদীর ওপর নির্মাণাধীন সেতুর কাজে ধীরগতিতে চলছে। উপজেলার মাধবখালী ইউনিয়নের কাঠালতলী – রামপুর সংযোগ ব্রিজের এই অবস্থা। ৩ বছরে নির্মাণ কাজ শেষ করার কথা থাকলেও হয়েছে ৪০ শতাংশ কাজ। ফলে দীর্ঘদিন ধরে এলাকার কয়েক হাজার মানুষের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। এছাড়া যানবাহন চলাচলেও বিঘ্ন ঘটছে। নেই বিকল্প পারাপারের ব্যবস্থাও। লোকজন বাধ্য হয়ে পাশের ঝুঁকিপূর্ন ব্রিজ দিয়ে চলাচল করছে। উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, ২০২০-২১ অর্থ বছরে জাইকার অর্থায়নে ৬ কোটি ৬৪ লাখ ৯০ হাজার ৭৬ টাকা ব্যয়ে ব্রিজ নির্মানের কাজটি যৌথভাবে পায় বরিশালের এম এম বিল্ডার্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিঃ ও মের্সাস আমির ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পোরেশন।কাজটি তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব পালন করে মির্জাগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী দপ্তর। কিন্তু নির্মান কাজ শুরুর প্রায় ৪ বছর পার হলেও শেষ হয়নি ব্রিজটির কাজ। স্থানীয় বাসিন্দা মোসাঃ আয়শা বেগম বলেন, নতুন ব্রিজের কাজ শুরু করে দীর্ঘ বছর ফেলে রেখেছে ঠিকাদার। বিকল্প যোগাযোগের কোন ব্যবস্থা করেনি। আমারা ঝুঁকি নিয়ে পুরাতন ঝুঁকিপূর্ন ব্রিজ দিয়ে পায়ে হেঁটে নদী পার হই।কিন্তু কোন গাড়ি পার হতে পারে না। ফলে কোন লোকজন মারা গেলেও ব্রিজের ওপর গাড়ি থামিয়ে স্ট্রেতে করে বাড়ি নিয়ে যেতে হয়। এটা আমাদের জন্য খুব কষ্টকর হয়ে পরে। পথচারী মোঃ সাইফুল বলেন, ব্রিজটি নিয়ে আমারা অনেক সমস্যা আছি। ৩ বছরের বেশি সময় ধরে পরে আছে। গাড়ি নিয়ে আমরা পারাপার হতে পারিনা।খুবই দূর্ভোগ পোহাচ্ছি। গাড়ি চালক মো. বাবুল বলেন, নতুন ব্রিজ নির্মান কাজ শুরু করে শেষ করার কোন খবর নেই। অন্যদিকে পুরাতন ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ন হওয়ায় আমারা গাড়ি পার করতে পারছিনা।যাত্রী নামিয়ে দিতে হয় ব্রিজের ঢালে। এতে আমাদের দিনে দিনে অনেক লোকসান হচ্ছে। মির্জাগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ আলমগীর বাদশাহ্ বলেন, ব্রিজটি নির্মানে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের কিছুটা গাফিলতি রয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে ব্রিজ নির্মান কাজটি শেষ করার জন্য ঠিকাদারকে জোর তাগিদ দেওয়া হবে। এবিষয়ে মের্সাস আমির ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পোরেশনের সত্ত্বাধিকারী মোঃ আমির হোসেন বলেন, কাজের শুরুতে ঝামেলা হয়েছিলে। তবে যথা সময়ে কাজ শেষ হবে।