বরিশাল ১২:৩৭ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
ভোট দিতে রাজি না হওয়ায় দুমকিতে জেলে বরাদ্দের গরু ছিনিয়ে নিল চেয়ারম্যান! তালতলীতে সংবাদ সংগ্রহের সময় প্রধান শিক্ষকের হাতে সাংবাদিক লাঞ্ছিত নলছিটি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিপুল ভোটে বিজয়ী সালাহ উদ্দিন খান সেলিম গৌরনদী উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীর অন্তরঙ্গ ভিডিও ভাইরাল পটুয়াখালীতে মাদক ব্যবসায়ীর কথা না শোনায় মারধরের অভিযোগ গৌরনদীতে মটরসাইকেল মার্কার সমর্থনে উঠান বৈঠক দুমকিতে কাপ প্রিচ মার্কার প্রার্থী ও সমর্থকদের উপর হামলা ঝালকাঠিতে আ.লীগ-যুবলীগ ও ছাত্রলীগসহ ১৭ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে মামলা মঠবাড়িয়ায় এ্যাডঃ বায়জিদ আহম্মেদ খানের দোয়াত কলম মার্কার গনজোয়ার।  নলছিটিতে এক কেজি গাঁজাসহ যুবক আটক

বানারীপাড়ায় লাখ লাখ টাকা দিয়েও যুবদলের পদ না পাওয়ার অভিযোগ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:০০:০৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪ ২৭ বার পড়া হয়েছে

বানারীপাড়া প্রতিনিধি— যুবদলের সভাপতি করার প্রলোভন দেখিয়ে বরিশাল দক্ষিণ জেলার অন্তর্গত বানারীপাড়া উপজেলা যুবদলের সদস্য সচিব মো. মিজান ফকির অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। এমন অভিযোগ করেছেন উপজেলার বিশারকান্দি ইউনিয়ন যুবদলের সদস্য মো. ইয়াসিন।

তিনি অভিযোগে উল্লেখ করেণ, বানারীপাড়া উপজেলা যুবদলের সদস্য সচিব মিজান ফকির অধিক অর্থের বিনিময়ে বিশারকান্দি ইউনিয়নে যুবদলের পকেট কমিটির অনুমোদন দিয়েছেন।

অথচ বিভিন্ন সময় মিজান ফকির ইয়াছিনের কাছ থেকে প্রায় ৫ লাখ টাকা নিয়েছেন তাকে বিশারকান্দি ইউনিয়ন যুবদলের আহবায়ক বা সদস্য সচিব করবেন এই প্রলোভনে দেখিয়ে।

টাকা গুলো একেক তারিখে মিজান ফকিরের ব্যবহিত মুঠোফেনের বিকাশ-নগদ আবার তার স্ত্রীর ব্যবহিত নম্বরেও নিয়েছেন। যার প্রমানপত্র ইয়াসিন মিডিয়াসহ বিএনপি ও কেন্দ্রীয় এবং বরিশাল দক্ষিণ যুবদল বরাবরে নালিশি আকারে প্রতিকার চেয়ে প্রেরণ করেছেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করেছেন।

অভিযোগে ইয়াছিন আরও বলেন,
বানারীপাড়া উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক সুমন হাওলাদারের কথা বলে সদস্য সচিব মিজান ফকির বিশারকান্দি ইউনিয়ন যুবদলের কমিটিতে তাকে আহবায়ক কিংবা পূর্ণাঙ্গ কমিটি হলে সভাপতি করার কথা বলে প্রায় ৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়।

তবে এতো পরিমান টাকা দেবার মধ্যে ইয়াছিন উপজেলা যুবদলের আহবায়ক সুমন হাওলাদারের কাছে একটি দিনের জন্যও জিজ্ঞেস করেণনি যে, আপনার কথা বলে মিজান ফকির টাকা চাচ্ছে এমনটাও জানান ইয়াছিন।

এ বিষয়ে বানারীপাড়া উপজেলা যুবদলের সদস্য সচিব মিজান ফকির জানান, ইয়াছিনের সাথে তার ব্যবসা ছিলো। এর এক পর্যায়ে ইয়াছিন তার কাছ থেকে ষ্ট্যাম্পে লিখিত দিয়ে ৪লাখ টাকা নিয়েছিলো সেই টাকাই পর্যায়ক্রমে তার (মিজান ফকির) ও স্ত্রীর নম্বরে পরিশোধ করে আসছিলো। এখানে উপজেলা যুবদলের আহবায়ক সুমন হাওলাদারের কোন কথা বলা হয়নি বলেও জানান মিজান ফকির।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

বানারীপাড়ায় লাখ লাখ টাকা দিয়েও যুবদলের পদ না পাওয়ার অভিযোগ

আপডেট সময় : ১২:০০:০৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪

বানারীপাড়া প্রতিনিধি— যুবদলের সভাপতি করার প্রলোভন দেখিয়ে বরিশাল দক্ষিণ জেলার অন্তর্গত বানারীপাড়া উপজেলা যুবদলের সদস্য সচিব মো. মিজান ফকির অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। এমন অভিযোগ করেছেন উপজেলার বিশারকান্দি ইউনিয়ন যুবদলের সদস্য মো. ইয়াসিন।

তিনি অভিযোগে উল্লেখ করেণ, বানারীপাড়া উপজেলা যুবদলের সদস্য সচিব মিজান ফকির অধিক অর্থের বিনিময়ে বিশারকান্দি ইউনিয়নে যুবদলের পকেট কমিটির অনুমোদন দিয়েছেন।

অথচ বিভিন্ন সময় মিজান ফকির ইয়াছিনের কাছ থেকে প্রায় ৫ লাখ টাকা নিয়েছেন তাকে বিশারকান্দি ইউনিয়ন যুবদলের আহবায়ক বা সদস্য সচিব করবেন এই প্রলোভনে দেখিয়ে।

টাকা গুলো একেক তারিখে মিজান ফকিরের ব্যবহিত মুঠোফেনের বিকাশ-নগদ আবার তার স্ত্রীর ব্যবহিত নম্বরেও নিয়েছেন। যার প্রমানপত্র ইয়াসিন মিডিয়াসহ বিএনপি ও কেন্দ্রীয় এবং বরিশাল দক্ষিণ যুবদল বরাবরে নালিশি আকারে প্রতিকার চেয়ে প্রেরণ করেছেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করেছেন।

অভিযোগে ইয়াছিন আরও বলেন,
বানারীপাড়া উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক সুমন হাওলাদারের কথা বলে সদস্য সচিব মিজান ফকির বিশারকান্দি ইউনিয়ন যুবদলের কমিটিতে তাকে আহবায়ক কিংবা পূর্ণাঙ্গ কমিটি হলে সভাপতি করার কথা বলে প্রায় ৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়।

তবে এতো পরিমান টাকা দেবার মধ্যে ইয়াছিন উপজেলা যুবদলের আহবায়ক সুমন হাওলাদারের কাছে একটি দিনের জন্যও জিজ্ঞেস করেণনি যে, আপনার কথা বলে মিজান ফকির টাকা চাচ্ছে এমনটাও জানান ইয়াছিন।

এ বিষয়ে বানারীপাড়া উপজেলা যুবদলের সদস্য সচিব মিজান ফকির জানান, ইয়াছিনের সাথে তার ব্যবসা ছিলো। এর এক পর্যায়ে ইয়াছিন তার কাছ থেকে ষ্ট্যাম্পে লিখিত দিয়ে ৪লাখ টাকা নিয়েছিলো সেই টাকাই পর্যায়ক্রমে তার (মিজান ফকির) ও স্ত্রীর নম্বরে পরিশোধ করে আসছিলো। এখানে উপজেলা যুবদলের আহবায়ক সুমন হাওলাদারের কোন কথা বলা হয়নি বলেও জানান মিজান ফকির।