বরিশাল ১২:০৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
ভোট দিতে রাজি না হওয়ায় দুমকিতে জেলে বরাদ্দের গরু ছিনিয়ে নিল চেয়ারম্যান! তালতলীতে সংবাদ সংগ্রহের সময় প্রধান শিক্ষকের হাতে সাংবাদিক লাঞ্ছিত নলছিটি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিপুল ভোটে বিজয়ী সালাহ উদ্দিন খান সেলিম গৌরনদী উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীর অন্তরঙ্গ ভিডিও ভাইরাল পটুয়াখালীতে মাদক ব্যবসায়ীর কথা না শোনায় মারধরের অভিযোগ গৌরনদীতে মটরসাইকেল মার্কার সমর্থনে উঠান বৈঠক দুমকিতে কাপ প্রিচ মার্কার প্রার্থী ও সমর্থকদের উপর হামলা ঝালকাঠিতে আ.লীগ-যুবলীগ ও ছাত্রলীগসহ ১৭ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে মামলা মঠবাড়িয়ায় এ্যাডঃ বায়জিদ আহম্মেদ খানের দোয়াত কলম মার্কার গনজোয়ার।  নলছিটিতে এক কেজি গাঁজাসহ যুবক আটক

মঠবাড়িয়ায় ব্লেড দিয়ে মাথা কেটে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে থানায় মামলা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:৪৭:৫৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪ ২২ বার পড়া হয়েছে

মঠবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার বুখইতলা বান্ধবপাড়া গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষকে হয়রানি করার জন্য ব্লেড দিয়ে মাথা কেটে ধারালো দায়ের কোপ বলে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে মঠবাড়িয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। শারমিন ওরফে হোসনেআরা নামে এক নারীর মাথা কেটে মহারাজ হাওলাদার বাদি হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।হোসনেআরা বুখইতলা বান্ধবপাড়া গ্রামের মৃত চান মিয়া হাওলাদারের মেয়ে। তার স্বামীর নাম আঃ হোসেন।আর মহারাজ বুখইতলা বান্ধবপাড়া গ্রামের মজিবুর রহমান পনুর ছেলে।

জানা গেছে, সাপলেজা ইউনিয়নের বুখইতলা বান্ধবপাড়া গ্রামের আঃ হামিদ হাওলাদারের সাথে মিলন ও ইসমাইল হোসেন হিরুদের জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলমান আছে। সম্প্রতী মিলন সৌদি আরব থেকে বাড়িতে এসে কবরস্থানের পাশে থাকা বাড়ির চলাচলের রাস্তার মাঝখান দিয়ে কবরস্থানের দেয়াল টানার চেষ্টা করে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নিকট আঃ হামিদ গং এ বছরের ১০ ফেব্রুয়ারি লিখিত অভিযোগ দিলে কাজ বন্ধ থাকে।এরপর গত ১৯ এপ্রিল সন্ধ্যায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মিরাজ মিয়া সরেজমিনে এসে কবরস্থানের দেয়াল নির্মানের জন্য জায়গা নির্ধারণ করে দেন। চেয়ারম্যান ঘটনাস্থল থেকে যেতে না যেতেই মিলনের ছেলে মেহেদি অর্ধ শতাধিক নারী-পুরুষ নিয়ে আঃ হামিদ গংদের ওপর হামলা চালানোর চেষ্টা করে।এ সময় তাদের হাতে দাও,লাঠি,লোহার রড ও রামদা ছিল।আঃ হামিদ গং বাড়ির ভিতর অবস্থান করে আত্মরক্ষা করেন।

চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে হুমকি এবং চেয়ারম্যান চলে যাওয়ার পর হামলা চেষ্টা করায় বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য এবং বিরোধীয় জমি সুষ্ঠু বন্টন না  হওয়া পর্যন্ত কাজ বন্ধ রাখার জন্য আঃ হামিদ হাওলাদারের ছেলে সাংবাদিক শাহজাহান মঠবাড়িয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেন।পরদিন সকালে এএসআই মামুন এলাকায় এসে শালিস বৈঠক মানিয়ে দেওয়ার জন্য উভয় পক্ষকে ওই দিন সন্ধ্যায় থানায় ডাকেন।কিন্তু মিলনের ছেলে মেহেদি ও মিলনের চাচাতো ভাই মহারাজ বাবার বাড়িতে থাকা শারমিন ওরফে হোসনেআরা নামে অসহায় এক নারীর মাথা কেটে পুলিশ কেসের জন্য হাসপাতালে ভর্তি করে এবং থানায় এজাহার দাখিল করে।২০ এপ্রিল দুপুরে এসআই ইয়াসির ঘটনাস্থল তদন্তে আসেন।এ সময় আঃ হামিদ হাওলাদারের ছেলে এবং সাংবাদিক শাহজাহানের বড় ভাই ইদ্রিস হাওলাদার পুলিশ দেখে তাদের কাছে গেলে তাকে গ্রেফতার করে।মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তারের বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানকে জানালে তিনি বাদিকে ডাকেন এবং থানায় গিয়ে অভিযোগ তুলে নিতে বলেন।কিন্তু বাদি মহারাজ গন্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে থানায় না গিয়ে আত্মগোপন করেন। বাদি অভিযোগ তুলতে থানায় না যাওয়ায় বেশ কিছু সময় অপেক্ষা করে ২০ এপ্রিল রাত ১০ টার দিকে মঠবাড়িয়া থানার ওসি শফিকুল ইসলাম মামলা রেকর্ড করেন।

এ মামলায় সাংবাদিক শাহজাহান সহ তাদের পরিবারের ৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। তিনি জাতীয় দৈনিক আমার বার্তা এবং আঞ্চলিক আজকের বার্তার মঠবাড়িয়া উপজেলার সংবাদদাতা।

সাংবাদিক শাহজাহান বলেন,প্রতিপক্ষরা বিরোধীয় এজমালি জমি ভাগ বাটোয়ারা না করে গায়ের জোরে ভোগ দখলের চেষ্টা চালায়। চলাচলের পথ বন্ধ করতে চায়। মাথা কেটে জখম তৈরি করে যারা মামলা দিতে পারে তারা না পারে এমন কোন কাজ নেই। এ ব্যাপারে কথা বলতে মামলার বাদি মহারাজের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শফিকুল ইসলাম জানান,মামলার তদন্ত কর্মকর্তা যাচাই বাছাই করেই একটি সঠিক তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

মঠবাড়িয়ায় ব্লেড দিয়ে মাথা কেটে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে থানায় মামলা

আপডেট সময় : ০৯:৪৭:৫৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪

মঠবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার বুখইতলা বান্ধবপাড়া গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষকে হয়রানি করার জন্য ব্লেড দিয়ে মাথা কেটে ধারালো দায়ের কোপ বলে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে মঠবাড়িয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। শারমিন ওরফে হোসনেআরা নামে এক নারীর মাথা কেটে মহারাজ হাওলাদার বাদি হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।হোসনেআরা বুখইতলা বান্ধবপাড়া গ্রামের মৃত চান মিয়া হাওলাদারের মেয়ে। তার স্বামীর নাম আঃ হোসেন।আর মহারাজ বুখইতলা বান্ধবপাড়া গ্রামের মজিবুর রহমান পনুর ছেলে।

জানা গেছে, সাপলেজা ইউনিয়নের বুখইতলা বান্ধবপাড়া গ্রামের আঃ হামিদ হাওলাদারের সাথে মিলন ও ইসমাইল হোসেন হিরুদের জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলমান আছে। সম্প্রতী মিলন সৌদি আরব থেকে বাড়িতে এসে কবরস্থানের পাশে থাকা বাড়ির চলাচলের রাস্তার মাঝখান দিয়ে কবরস্থানের দেয়াল টানার চেষ্টা করে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নিকট আঃ হামিদ গং এ বছরের ১০ ফেব্রুয়ারি লিখিত অভিযোগ দিলে কাজ বন্ধ থাকে।এরপর গত ১৯ এপ্রিল সন্ধ্যায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মিরাজ মিয়া সরেজমিনে এসে কবরস্থানের দেয়াল নির্মানের জন্য জায়গা নির্ধারণ করে দেন। চেয়ারম্যান ঘটনাস্থল থেকে যেতে না যেতেই মিলনের ছেলে মেহেদি অর্ধ শতাধিক নারী-পুরুষ নিয়ে আঃ হামিদ গংদের ওপর হামলা চালানোর চেষ্টা করে।এ সময় তাদের হাতে দাও,লাঠি,লোহার রড ও রামদা ছিল।আঃ হামিদ গং বাড়ির ভিতর অবস্থান করে আত্মরক্ষা করেন।

চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে হুমকি এবং চেয়ারম্যান চলে যাওয়ার পর হামলা চেষ্টা করায় বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য এবং বিরোধীয় জমি সুষ্ঠু বন্টন না  হওয়া পর্যন্ত কাজ বন্ধ রাখার জন্য আঃ হামিদ হাওলাদারের ছেলে সাংবাদিক শাহজাহান মঠবাড়িয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেন।পরদিন সকালে এএসআই মামুন এলাকায় এসে শালিস বৈঠক মানিয়ে দেওয়ার জন্য উভয় পক্ষকে ওই দিন সন্ধ্যায় থানায় ডাকেন।কিন্তু মিলনের ছেলে মেহেদি ও মিলনের চাচাতো ভাই মহারাজ বাবার বাড়িতে থাকা শারমিন ওরফে হোসনেআরা নামে অসহায় এক নারীর মাথা কেটে পুলিশ কেসের জন্য হাসপাতালে ভর্তি করে এবং থানায় এজাহার দাখিল করে।২০ এপ্রিল দুপুরে এসআই ইয়াসির ঘটনাস্থল তদন্তে আসেন।এ সময় আঃ হামিদ হাওলাদারের ছেলে এবং সাংবাদিক শাহজাহানের বড় ভাই ইদ্রিস হাওলাদার পুলিশ দেখে তাদের কাছে গেলে তাকে গ্রেফতার করে।মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তারের বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানকে জানালে তিনি বাদিকে ডাকেন এবং থানায় গিয়ে অভিযোগ তুলে নিতে বলেন।কিন্তু বাদি মহারাজ গন্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে থানায় না গিয়ে আত্মগোপন করেন। বাদি অভিযোগ তুলতে থানায় না যাওয়ায় বেশ কিছু সময় অপেক্ষা করে ২০ এপ্রিল রাত ১০ টার দিকে মঠবাড়িয়া থানার ওসি শফিকুল ইসলাম মামলা রেকর্ড করেন।

এ মামলায় সাংবাদিক শাহজাহান সহ তাদের পরিবারের ৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। তিনি জাতীয় দৈনিক আমার বার্তা এবং আঞ্চলিক আজকের বার্তার মঠবাড়িয়া উপজেলার সংবাদদাতা।

সাংবাদিক শাহজাহান বলেন,প্রতিপক্ষরা বিরোধীয় এজমালি জমি ভাগ বাটোয়ারা না করে গায়ের জোরে ভোগ দখলের চেষ্টা চালায়। চলাচলের পথ বন্ধ করতে চায়। মাথা কেটে জখম তৈরি করে যারা মামলা দিতে পারে তারা না পারে এমন কোন কাজ নেই। এ ব্যাপারে কথা বলতে মামলার বাদি মহারাজের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শফিকুল ইসলাম জানান,মামলার তদন্ত কর্মকর্তা যাচাই বাছাই করেই একটি সঠিক তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করবেন।